বাঙ্গালী
Monday 26th of July 2021
186
0
نفر 0
0% این مطلب را پسندیده اند

ইসলাম ধর্ম, চিত্ত বিনোদন ও আনন্দ

প্রাত্যহিক জীবনে মানুষ নানা কাজে ব্যস্ততা এবং বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাতের কারণে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। কর্মক্লান্ত মানুষের আত্মিক সজীবতার জন্য প্রয়োজন বিশ্রাম ও বিনোদন। মানুষের শরীরের জন্য যেমন বিভিন্ন ধরনের খাদ্য ও ভিটামিন জরুরী তেমনি তার আত্মার জন্যও বিনোদন, বিশ্রাম ও খাদ্য জরুরী। আনন্দ ও চিত্ত বিনোদন মানুষের মধ্যে হতাশা ও ব্যর্থতার গ্লানিসহ অন্যান্য নেতিবাচক অনুভূতিকে মন থেকে মুছে দেয় । আনন্দের অনুভূতি মানুষকে প্রশান্তি দেয় এবং মনকে সুস্থ ও সতেজ রাখে । বিশ্বনবী (সা)'র পবিত্র আহলে বাইতের সদস্য হযরত ইমাম রেজা (আঃ) বলেছেন, আনন্দ ও চিত্ত বিনোদন মানুষকে জীবন যাপনের ক্ষেত্রে সহায়তা করে এবং এ সবের সহায়তায় দুনিয়ার বা পার্থিব বিষয়ে বেশী সাফল্য পাওয়া যায়। আজকাল মনোবিজ্ঞানীরা মানুষের সুস্থতার জন্য আনন্দ ও চিত্ত বিনোদনকে খুব গুরুত্ব দিচ্ছেন। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রেও আনন্দ ও চিত্ত বিনোদনকে ব্যাপক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। অনেক মনোবিজ্ঞানী বলছেন, চিত্তবিনোদন, হাসি-খুশি ও প্রফুল্লতা বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধ করে এবং শরীরে নানা ধরনের ক্যান্সারের দ্রুত ছড়িয়ে পড়াকেও ঠেকিয়ে রাখে । চিকিৎসা বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে হাসি ও প্রফুল্লতা এমন এক অনৈচ্ছিক প্রতিক্রিয়া যার ফলে মুখের ১৫টি মাংসপেশি একই সময়ে সংকুচিত হয় এবং দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস ঘটে । এ ছাড়াও হাসি ও প্রফুল্লতার সময় শরীরের রক্ত-প্রবাহ দ্রুত সঞ্চালিত হওয়ায় রক্তে এড্রেনালিন বেড়ে যায়। ফলে মানুষ আরো সজীবতা ও আনন্দ অনুভব করে । মানুষের জীবনে যদি আনন্দ ও প্রফুল্লতা না থাকতো তাহলে মানুষ মানসিক চাপের তীব্রতায় প্রাণ ত্যাগ করতো । তাই জনগণের মধ্যে হতাশা দূর করা ও তাদের চিত্ত বিনোদনের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নেয়া সরকারের দায়িত্ব। সরকার জনগণের জন্য সুস্থ বিনোদন ও নিষ্কলুষ আনন্দের ব্যবস্থা করতে পারলে তা দেশের উন্নতি-অগ্রগতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

একইভাবে পরিবার ও সমাজের উন্নতির জন্যেও দুঃখ ও হতাশা দূর করা এবং আনন্দ ও চিত্ত বিনোদনের ব্যবস্থা করা জরুরী। আনন্দিত বা দুঃখিত হওয়া কেবল একজন মানুষের নিজের সাথে সম্পর্কিত বিষয় নয়। কারণ, একজন মানুষের হাসি-খুশী মুখ এবং দুঃখ-ভারাক্রান্ত বা ক্রুদ্ধ চেহারা অন্যদেরও প্রভাবিত করে । বৃটিশ জীব বিজ্ঞানী রুপার্ট শেল্ডারকে বলেছেন, মানুষের স্মৃতি এবং অনুভূতি কেবল মগজের মধ্যেই সঞ্চিত থাকে না, মানুষের মধ্যে সামষ্টিক বা সামাজিক অনুভূতি নামে এক ধরনের বিশেষ অনুভূতি রয়েছে। আর এ অনুভূতি-শক্তির মাধ্যমে মানুষ পরস্পরের সাথে সম্পর্কিত হয়। আর এ কারণেই অন্যের সুখ ও দুঃখ মানুষকে প্রভাবিত করে।
অবশ্য মানুষের সুখ আপেক্ষিক বিষয় । বিভিন্ন ধরনের মানুষ বিভিন্ন অবস্থায় আনন্দ পায় । কোনো কোনো সমাজ-বিজ্ঞানীর মতে, সমাজের দূর্বল বা বঞ্চিত শ্রেণীর মানুষ ফুটবল খেলা দেখা বা এ ধরনের বিষয় থেকে আনন্দ পায়। আবার মধ্যবিত্ত বা অবস্থা সম্পন্ন লোকেরা অর্থ জমিয়ে এবং বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করে আনন্দ বা সুখ উপভোগ করতে চায়। গ্রীক দার্শনিক এরিস্টোটল মনে করতেন চিন্তাশীল জীবনের মধ্যে রয়েছে আনন্দ এবং এই আনন্দই হচ্ছে সর্বোচ্চ আনন্দ। আবার অনেক দার্শনিক ও গবেষক মনে করেন কেবল ধর্মীয় ও নৈতিক জীবন যাপনের মধ্যেই রয়েছে আনন্দ।
পবিত্র ইসলাম ধর্ম মানুষের শারীরীক ও আত্মিক সমস্ত চাহিদার প্রতি গুরুত্ব দেয়। ইসলাম মনে করে, একটি সফল জীবনের জন্য প্রশান্তি ও প্রফুল্লতা থাকা জরুরী। পবিত্র কোরআনের বিভিন্ন স্থানে সুখ বা আনন্দ শব্দটি প্রায় ২৫ বার এসেছে। যারা মানুষের জন্য আনন্দ ও সুখের ব্যবস্থা করেন, পবিত্র কোরআন তাদের প্রশংসা করে এবং তারা পরকালে আল্লাহর কাছ থেকে পুরস্কার পাবে বলে উল্লেখ করেছে। ইসলাম মানুষের প্রাত্যহিক জীবনে আনন্দ উপভোগের দিক নির্দেশনা দিয়েছে। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ(সাঃ)'র আহলে বাইতের সদস্য হযরত ইমাম রেজা (আঃ) বলেছেন, তোমার প্রাত্যহিক তৎপরতার সময়কে চার ভাগে ভাগ করে নাও। এই চার ভাগের এক ভাগ সময়ে আল্লাহর এবাদত করবে। এক ভাগ ব্যয় করবে আয়-উপার্জনের জন্য, অন্য এক ভাগ সময়ে নিজের বিশ্বস্ত ভাইদের সাথে ও এমন লোকদের সাথে যোগাযোগ রাখবে যারা তোমাকে তোমার দোষ-ত্রুটি সম্পর্কে অবহিত করবে। এ ছাড়াও অন্য এক ভাগ সময় চিত্ত বিনোদন ও আনন্দের জন্য বরাদ্দ রাখবে। আর আনন্দ ও চিত্ত বিনোদনের মাধ্যমে অর্জিত মানসিক শক্তিকে কাজে লাগিয়ে অন্য সময়ের দায়িত্ব এবং কাজগুলো সম্পন্ন করবে।
সুস্থ বিনোদন বা নিষ্কলুষ আমোদ-প্রমোদ মানুষকে সুস্থ আনন্দ উপহার দেয়। রংবেরংয়ের ফুল, সবুজ গাছ-পালা, ঝর্ণা, পাহাড়-পর্বত, নদী-নালা প্রভৃতি সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখে আমরা একদিকে যেমন আনন্দ উপভোগ করতে পারি, তেমনি কিছুটা হলেও মহান আল্লাহর নেয়ামত বা অনুগ্রহকে উপলব্ধি করে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে পারি। ভ্রমণ ও এর মাধ্যমে সুন্দর দৃশ্য দেখা বা জ্ঞান অর্জন করা সুস্থ বিনোদনের আরেকটি মাধ্যম । পবিত্র কোরআন মানুষকে বিভিন্ন স্থান ভ্রমণ করে অতীতের জাতিগুলোর পরিণতি থেকে শিক্ষা নিতে বলে । ভ্রমণের ফলে মানুষের মনে জমে থাকা অবসাদ, একঘেয়েমি ও ক্লান্তি দূর হয় এবং মন সতেজ ও প্রফুল্ল হয়ে ওঠে। ভ্রমণ মানুষের শরীরকেও সুস্থ রাখে। এ জন্যই বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) বলেছেন, তোমরা সুস্থ থাকার জন্য ভ্রমণ কর।
শরীর-চর্চা ও খেলাধুলাও বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) বলেছেন, পিতার ওপর সন্তানের অধিকার হলো হলো, পিতা সন্তানকে লেখা, সাঁতার ও তীর-চালনা শেখাবে এবং বৈধ আয়ের মাধ্যমে সন্তানের জীবীকা নির্বাহ করবে।
বিভিন্ন উৎসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়াও আনন্দ ও বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম। এ জন্যই ইসলাম ধর্মীয় উৎসব বা দিবস ও ধর্মীয় নেতা বা মহান ইমামগণের জন্ম-দিনে উৎসব পালন করাকে গুরুত্ব দিয়েছে । তবে উৎসবের নামে বাড়াবাড়ি, অপচয় অর্থহীন কর্মকান্ড ও অপসংস্কৃতি বা অনাচারে জড়িয়ে পড়া নিষিদ্ধ । চিন্তাবিদদের মতে অন্যদের সহায়তা করা এবং গরীব ও অসহায় ব্যক্তিদের সাহায্য দেয়ার পাশাপাশি ধর্মীয় ফরজ বা অবশ্য-পালনীয় কর্তব্য সম্পাদনও প্রকৃত ও অকৃত্রিম আনন্দের উৎস ।
দুনিয়ার আকর্ষণ ও চাকচিক্য থেকে নিজেকে দূরে রাখাও প্রকৃত সুখ বা আনন্দের উৎস । ভোগবাদ, বিলাসিতা ও চাকচিক্যের প্রতি মোহ মানুষকে লোভী ও পরকালের প্রতি উদাসীন করে। লোভী মানুষ অনেক কিছু পেয়েও সন্তুষ্ট হয় না, ফলে তার মধ্যে মানসিক অশান্তি বাড়তেই থাকে। তাই যারা দুনিয়ার বাহ্যিক জাকজমক ও চাকচিক্যের প্রতি আকৃষ্ট হয় না, তাদের দৃষ্টি হয় অনেক উদার ও প্রসারিত । এ ধরনের মানুষ সামান্য সমস্যায় নতজানু হন না এবং তারা বিভিন্ন প্রতিকূলতার মধ্যেও উঁচু মনোবলের অধিকারী হন। এক্ষেত্রে প্রার্থনা বা মোনাজাত মানুষের অন্তরে শক্তি যোগায় এবং আত্মাকে করে সজীব ও প্রাণবন্ত। কবিতা বা গজল আবৃত্তি, বিয়ের উৎসব, উপহার দেয়া, উজ্জ্বল রংয়ের জামা কাপড় পরা, সুগন্ধি ব্যবহার, সুন্দর সাজে সজ্জিত হওয়া, আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ এবং সর্বোপরি কর্ম ও সাধনায় জড়িত থাকা ইসলাম-নির্দেশিত নির্মল আনন্দের আরো কিছু মাধ্যম । সবশেষে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ)'র একটি বাণী শুনিয়ে শেষ করবো আজকের এই আলোচনা। তিনি বলেছেন, যে কেউ একজন মুমিনকে আনন্দ দিল, সে যেন আমাকে আনন্দ দিল, আর যে আমাকে খুশি করলো, সে অবশ্যই আল্লাহকেও খুশি করলো।

186
0
0% (نفر 0)
 
نظر شما در مورد این مطلب ؟
 
امتیاز شما به این مطلب ؟
اشتراک گذاری در شبکه های اجتماعی:

latest article

তাকলিদ
আদাবুস সুলূক (আধ্যাত্মিক পথ ...
হযরত ফাতেমার চরিত্র ও কর্ম-পদ্ধতি
দোয়ার গুরুত্ব ৪র্থ পর্ব
আদর্শ মানব হযরত মুহাম্মদ (সা.) - ৩য় পর্ব
আল্লাহ্ ব্যতীত কেউ কি অদৃশ্যের জ্ঞান ...
শিমারের বাধায় যুদ্ধ ঠেকানোর চেষ্টা ও ...
বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে আল কোরআনের ...
নৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকেও তওবা করা ...
নতুন ইমাম হযরত যইনুল আবেদীন (আ.)'র ...

latest article

তাকলিদ
আদাবুস সুলূক (আধ্যাত্মিক পথ ...
হযরত ফাতেমার চরিত্র ও কর্ম-পদ্ধতি
দোয়ার গুরুত্ব ৪র্থ পর্ব
আদর্শ মানব হযরত মুহাম্মদ (সা.) - ৩য় পর্ব
আল্লাহ্ ব্যতীত কেউ কি অদৃশ্যের জ্ঞান ...
শিমারের বাধায় যুদ্ধ ঠেকানোর চেষ্টা ও ...
বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে আল কোরআনের ...
নৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকেও তওবা করা ...
নতুন ইমাম হযরত যইনুল আবেদীন (আ.)'র ...

 
user comment