বাঙ্গালী
Monday 13th of July 2020
  804
  0
  0

সাইয়্যেদুন্নিসা খাতুনে জান্নাত ফাতিমার দাফনের সময় হযরত আলী (আ.) প্রদত্ত খোৎবা

সাইয়্যেদুন্নিছা খাতুনে জান্নাতের দাফনের সময় আমিরুল মোমেনিন বলেনঃ হে আল্লাহর রাসূল, আমার সালাম ও আপনার কন্যার সালাম গ্রহণ করুন। আপনার কন্যা আপনার কাছে আসছেন এবং তিনি আপনার সাক্ষাত লাভের জন্য তাড়াহুড়া করেছিলেন। হে আল্লাহর রাসুল, আপনার প্রাণপ্রিয় কন্যার মৃত্যু আমাকে ধৈর্যহারা করে দিয়েছে এবং আমার সহ্যশক্তি দুর্বল হয়ে পড়েছে। আমার সান্তুনার ক্ষেত্র এটুকু যে, আপনার দুঃখজনক ও হৃদয় বিদারক বিচ্ছেদ-বেদনা আমি ধৈর্য সহকারে সহ্য করেছি। আপনাকে আমি নিজ হাতে কবরে শায়িত করেছি। আমার গ্রীবা ও বুকের মাঝখানে আপনার পবিত্র মস্তক থাকাবস্থায় আপনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন।

আমরা তো আল্লাহরই এবং নিশ্চিতভাবে তাঁর দিকেই প্রত্যাবর্তনকারী। এবার,আপনার আমানত ফেরত নেয়া হয়েছে এবং যা দেয়া হয়েছিল তা আবার ফিরিয়ে নেয়া হলো। আমার শোকের আর কোন সীমা রইলো না এবং আমার রাত্রি নিদ্রাবিহীন হয়ে গেল যে পর্যন্ত না আপনি এখন যে ঘরে আছেন আল্লাহ আমার জন্য সে ঘর মঞ্জুর করেন।

নিশ্চয়ই,আপনার কন্যা আপনার সাক্ষাত লাভ করেই আপনাকে বিস্তারিত বলেছেন যে, আপনার উম্মাহ তার প্রতি কতই না অত্যাচার করেছে। আপনি দয়া করে তাকে জিজ্ঞেস করে বিস্তারিত খবর জেনে নেবেন। এসব ঘটনা এত অল্পকালের মধ্যে ঘটেছে যে,লোকেরা এখনো আপনাকে স্মরণ করে এবং আপনার কথা বলাবলি করে। আপনাদের উভয়ের প্রতি আমার সালাম । এ সালাম, একজন শোকাহতের- কোন বিরক্ত বা সঘৃণ ব্যক্তির নয়। আমার এখান থেকে চলে যাওয়ার কারণ এ নয় যে, আমি শ্রান্ত হয়ে পড়েছি এবং যদি আমি এখানে থাকি তার কারণ এ নয় যে,আল্লাহ্ সবুরকারীদের জন্য যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আমি তাতে বিশ্বাস হারিয়েছি।

(জেহাদুল ইসলাম কর্তৃক অনূদিত নাহজ আল বালাঘার ২০১তম খুৎবা থেকে সংকলিত)

  804
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

latest article

    খলিফা মামুনের বিষে শহীদ হন ইমাম রেযা ...
    হযরত ফাতেমা (আ.)’র জন্মবার্ষিকী ...
    ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী-৪র্থ পর্ব
    ইমাম হোসাইন (আ.)-এর জন্ম সংক্রান্ত একটি ...
    খলিফাতুর রাসূলের প্রয়োজনীয়তা ও ...
    ইসলামী দর্শন
    নবীবংশের এগারতম নক্ষত্র ইমাম আসকারী ...
    ইসলামের উজ্জলতম নক্ষত্র: ইমাম ...
    ইমাম হাসান (আ.) এর শাহাদাত
    ইমাম রেযা (আ.)

 
user comment