বাঙ্গালী
Sunday 27th of September 2020
  41
  0
  0

হযরত আলী (আ.)-এর জীবনের শেষ দিনগুলো

হযরত আলী (আ.)-এর জীবনের শেষ দিনগুলো

আলী (আ.)-এর জীবনের শেষ রমযান মাস অন্য এক রকম রমযান যা ভিন্ন এক পবিত্রতা নিয়ে বিরাজ করছিল। আলীর পরিবারের জন্যও এ রমযান প্রথম দিক থেকেই অন্য রকম ছিল। ভয় ও শঙ্কার একটি মিশ্রিত অবস্থা বিরাজমান ছিল। (খাওয়ারেজ আলী (আ.)-কে হত্যার পরিকল্পনা নিয়েছিল) সেহেতু আলীর জীবনধারা এ রমযানে অন্য রমযানের থেকে অন্য রকম ছিল।

হযরত আলীর শক্তিমত্তার একটি বর্ণনা নাহজুল বালাগা থেকে এখানে বর্ণনা করব। আলী (আ.) বলেছেন,

لما انزل الله سحانه قوله (الم أَحَسِبَ النَّاسُ أَنْ يُتْرَكُوا أَنْ يَقُولُوا آمَنَّا وَهُمْ لَا يُفْتَنُونَ) علمت انّ الفتنة لا بنا و رسل الله (ص) بین اظهرنا

“যখন এ আয়াত ‘মানুষ কি ভেবে নিয়েছে আমরা ঈমান এনেছি এ কথা বললেই তাদের ছেড়ে দেয়া হবে এবং তাদেরকে পরীক্ষা করা হবে না’ (আনকাবুত ১-২) নাযিল হলো তখন বুঝতে পারলাম রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর মৃত্যুর পর এ উম্মতের জন্য ফেতনা ও কঠিন পরীক্ষা আসবে।

فقلت: یارسول الله (ص) ما هذه الفتنة التی اخبرک الله تعالی بها

তখন রাসূলকে প্রশ্ন করলাম : হে রাসূলাল্লাহ্! এ আয়াতে আল্লাহ্ যে ফেতনার কথা বলছেন সেটা কি? তিনি বললেন :

یا علی إنّ امتی سیفتون من بعدی

হে আলী! আমার পর আমার উম্মত পরীক্ষার সম্মুখীন হবে।” যখন আলী শুনলেন রাসূল মৃত্যুবরণ করবেন এবং তার পরে কঠিন পরীক্ষা আসবে তখন ওহুদের যুদ্ধের কথা স্মরণ করে বললেন,

یا رسول الله او لیس قد قلت لی یوم احد حیث استشهد من استشهد من المسلمین و خیّزت عنّی الشهادة

“ইয়া রসুলাল্লাহ্! ওহুদের দিনে যারা শহীদ হওয়ার তারা শহীদ হলেন (মুসলমানদের মধ্যে সত্তরজন শহীদ হয়েছিলেন যাদের নেতা ছিলেন হামজা ইবনে আবদুল মুত্তালিব এবং আলী ওহুদের শ্রেষ্ঠ যোদ্ধাদের একজন ছিলেন) অর্থাৎ তারা শাহাদাতের মর্যাদা লাভ করলেন এবং শাহাদাত আমার থেকে দূরে চলে গেল,আমি এর থেকে বঞ্চিত হলাম এবং খুবই দুঃখ পেয়ে আপনাকে প্রশ্ন করলাম,কেন এ মর্যাদা আমার ভাগ্যে ঘটল না। (আলী এ সময় পঁচিশ বছরের যুবক ছিলেন এবং এক বছর হলো হযরত ফাতেমা যাহরা (আ.)-কে বিবাহ করেছেন এবং এক সন্তানের জনক। এ বয়সের যুবক যখন জীবনকে সুন্দরভাবে সাজানোর স্বপ্ন দেখে তখন আলী শাহাদাতের প্রত্যাশী।) আপনি বললেন, ابشر فإنّ الشهادة من ورائکযদিও এখানে শহীদ হওনি কিন্তু অবশেষে শাহাদাত তোমার ভাগ্যে ঘটবে।” তারপর মহানবী বললেন,

إنّ ذلک لکذلک فکیف صبرک اذن

“অবশ্যই এমনটি হবে তখন তুমি কিরূপে ধৈর্যধারণ করবে। এখানে ধৈর্যের স্থান নয়,বরং শোকর করার স্থান।” (নাহজুল বালাগাহ্,খুতবা নং ১৫৪)

রাসূল (সা.)-এর নিকট থেকে নিজের শাহাদাত সম্পর্কে যে খবর তিনি শুনেছিলেন সে সাথে বিভিন্ন আলামত যা তিনি দেখতেন,কখনো কখনো তা বলতেন যা তার পরিবারের সদস্য এবং নিকটবর্তী শুভাকাঙ্ক্ষী ও সাহাবীদের মধ্যে শঙ্কা ও কষ্ট বৃদ্ধি করত। তিনি আশ্চর্যজনক কিছু কথা বলতেন। এ রমযান মাসে নিজের ছেলে-মেয়েদের ঘরে ইফতার করতেন। প্রতি রাতে যে কোন এক ছেলে বা মেয়ের ঘরে মেহমান হতেন- কোন রাতে ইমাম হাসানের ঘরে,কোন রাতে ইমাম হুসাইনের ঘরে,কোন রাতে হযরত যয়নাবের ঘরে (যিনি আবদুল্লাহ্ ইবনে জা’ফরের স্ত্রী ছিলেন)। এ মাসে অন্যান্য সময়ের চেয়ে কম খাবার খেতেন। সন্তানরা এতে খুবই কষ্ট পেতেন। তারা কখনো প্রশ্ন করতেন,“বাবা,কেন এত কম খান?” তিনি বলতেন,“আল্লাহর সাথে এমনাবস্থায় মিলিত হতে চাই যে উদর ক্ষুধার্ত থাকে।” সন্তানরা বুঝতেন তাদের পিতা কিছুর জন্য যেন অপেক্ষমান। কখনো কখনো তিনি আকাশের দিকে তাকিয়ে বলতেন,“আমার ভাই ও বন্ধু রাসূল (সা.) আমাকে যে খবর দিয়েছেন তা অবশ্যই সত্য। তার কথা কখনো মিথ্যা হতে পারে না। খুব নিকটেই তা সত্যে পরিণত হবে।”

তের রমযান এমন কিছু বললেন যা অন্য সব দিনের চেয়ে পরিবেশকে বেশি ভারাক্রান্ত করে তুলল। সম্ভবত জুমআর দিন খুতবা পড়লেন। ইমাম হুসাইন (আ.)-কে প্রশ্ন করলেন,“বাবা এ মাসের কত দিন বাকি রয়েছে?” উত্তর দিলেন,“পিতা,১৭ দিন।” তিনি বললেন,“তাহলে আর দেরি নেই। এ মাথা আর দাড়ি রক্তে রঞ্জিত হবে। এ শ্মশ্রু রঙ্গিন হওয়ার সময় নিকটেই।”

ঊনিশে রমযান আলী (আ.)-এর সন্তানরা রাতের একটি অংশ আলীর সঙ্গে কাটালেন। ইমাম হাসান নিজের ঘরে চলে গেলেন। আলী জায়নামাজে বসলেন। শেষ রাতে উদ্বিগ্নতার কারণে (অথবা প্রতি রাতই হয়তো এ রকম করতেন) ইমাম হাসান আলীর নামাযের স্থানে গিয়ে বসলেন। (ইমাম হাসান ও ইমাম হুসাইন হযরত ফাতেমা যাহরার সন্তান বলে ইমাম আলী এদের প্রতি আলাদা রকম স্নেহ দেখাতেন। কারণ এদের প্রতি স্নেহ রাসূলুল্লাহ্ ও ফাতেমা যাহরার প্রতি সম্মান প্রদর্শন বলে মনে করতেন) যখন ইমাম হাসান তার কাছে আসলেন তখন তিনি বললেন,

ملکتنی عینی و انا جالس فسنح لی رسول الله (ص) فقلت یا رسول الله ماذا لقیت من امّتک من الاود و اللدد فقال ادع علیهم فقلت ابدلنی الله بهم خبرا منهم و ابدلهم بی شرّ لهم منّی

“পুত্র,হঠাৎ স্বপ্নের মধ্যে রাসূলকে আবির্ভূত হতে দেখলাম। যখন রাসূলকে দেখলাম তখন বললাম: ইয়া রাসূলাল্লাহ্! আপনার এ উম্মতের হাতে আমার অন্তর রক্তাক্ত হয়েছে।” প্রকৃতপক্ষে তার সঙ্গে মানুষের অসহযোগিতা এবং তার নির্দেশিত পথে চলার ক্ষেত্রে তাদের অনীহা আলী (আ.)-কে তীব্র যন্ত্রণা দিয়েছে। উষ্ট্রের যুদ্ধের বায়আত ভঙ্গকারীরা,সিফফিনে মুয়াবিয়ার প্রতারণা (মুয়াবিয়া অত্যন্ত ধুর্ত ছিল,ভালোভাবেই জানত কি করলে আলীর হৃদয়কে ক্ষত-বিক্ষত করা যাবে। আর সে তা-ই করত),সবশেষে খারেজীদের রূহবিহীন আকীদা-বিশ্বাস যারা ঈমান ও এখলাছ মনে করে আলী(আ.)-কে কাফের ও ফাসেক বলত। আমরা জানি না আলীর সঙ্গে এরা কি আচরণ করেছে! প্রকৃতই যখন কেউ আলীর উপর আপতিত মুসিবতগুলো দেখে,আশ্চর্যান্বিত বোধ করে। একটি পাহাড়ও এ পরিমাণ মুসিবত সহ্য করার ক্ষমতা রাখে না। এমন অবস্থা যে,আলী তার এই মুসিবতের কথা কাউকে বলতেও পারেন না। এখন যখন রাসূলে আকরাম (সা.)-কে স্বপ্নে দেখলেন তখন বললেন,“ইয়া রাসূলাল্লাহ্! আপনার এ উম্মত আমার হৃদয়কে ক্ষত-বিক্ষত করেছে। এদের নিয়ে আমি কি করব?” তারপর ইমাম হাসানকে বললেন,“পুত্র,তোমার নানা আমাকে নির্দেশ দিলেন এদের প্রতি অভিশাপ দিতে। আমিও স্বপ্নের মধ্যেই অভিশাপ দিয়ে বললাম : হে আল্লাহ্! যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমাকে মৃত্যুদান কর এবং এদের উপর এমন ব্যক্তিকে প্রভাব ও প্রতিপত্তি দান কর এরা যার উপযুক্ত।”

বোঝা যায়,এ বাক্যের সাথে কতটা হৃদয়ের বেদনা ও দুঃখ জড়িয়ে রয়েছে! আলী (আ.) সুবহে সাদিকের সময় ঘর থেকে যখন বের হচ্ছিলেন বাড়ির হাঁসগুলো অসময়ে ডেকে উঠল। আলী বললেন,

دعو هنّ فانّهنّ صوائح تتبعها نوائح

 “এখন পাখির কান্না শোনা যাচ্ছে,বেশি দেরি নয় এরপর এখান থেকেই মানুষের কান্না শোনা যাবে। উম্মে কুলসুম আমিরুল মুমিনীনের সামনে এসে বাঁধা দিলেন। তিনি বললেন,“বাবা,আপনাকে মসজিদে যেতে দেব না। অন্য কাউকে আজ নামায পড়াতে বলুন।” প্রথমে বললেন,“জুদাহ ইবনে হুবাইরাকে বলুন জামাআত পড়াতে।” পরক্ষণেই আলী বললেন,“না আমি নিজেই যাব।” বলা হলো,অনুমতি দিন আপনার সঙ্গে কেউ যাক। তিনি বললেন,“না,আমি চাই না কেউ আমার সঙ্গে যাক।”

হযরত আলীর জন্য রাতটি অত্যন্ত পবিত্র ছিল। আল্লাহ্ জানেন আলীর মধ্যে সে রাত্রে কেমন উত্তেজনা ছিল! তিনি বলছেন,“আমি অনেক চেষ্টা করেছি এ আকস্মিক শিহরণের রহস্য উদ্ঘাটন করব। যদিও ধারণা ছিল কোন বড় ঘটনা ঘটবে যা অপেক্ষায় আছে।” যেমন নাহজুল বালাগায় আলী(আ.) নিজেই বলছেন,

کم اطردت الایام عن مکنون هذا الامر فابی الله الا اخفاءه

 

“অনেক চেষ্টা করেছি এ রহস্যের গোপনীয়তা উদ্ঘাটন করব,কিন্তু আল্লাহ্ চাননি,বরং তিনি এটা গোপন রেখেছেন।”

নিজেই ফজরের আজান দিতেন। সুবহে সাদিকের সময় নিজেই মুয়াজ্জিনের স্থানে দাঁড়িয়ে (আল্লাহু আকবার বলে) উচ্চৈঃস্বরে আজান দিলেন। সেখান থেকে নামার সময় সুবহে সাদেকের সাদা আভাকে বিদায় জানালেন। তিনি বললেন,“হে সাদা আভা! এ ফজরে একদিন আলী এ পৃথিবীতে চোখ খুলেছিল। এমন কোন ফজর কি আসবে যে,তুমি থাকবে আর আলী ঘুমিয়ে থাকবে। নাকি এবার আলীর চোখ চিরতরে ঘুমিয়ে পড়বে।” যখন তিনি নেমে এলেন তখন বললেন,

خلو سبیل المومن المجاهد
 
    

 
    

فی الله ذی الکتب وذی المشاهد
 

فی الله لا یعبد غیر الواحد
 
    

 
    

و یوقظ الناس الی المساجد
 
 

 

 “এই মুমিন ও মুজাহিদের জন্য রাস্তা খুলে দাও (নিজেকে মুমিন ও মুজাহিদ বলে উল্লেখ করেছেন) যে গ্রন্থ ও শাহাদাতের অধিকারী,একক খোদা ব্যতীত কারো ইবাদত করেনি এবং মানুষকে মসজিদে যাওয়ার জন্য ঘুম থেকে উঠাতো।”

পরিবারের কাউকে অনুমতি দেননি বাইরে যাওয়ার। আলী বলেছিলেন,“পাখিদের কান্নার পর মানুষের আহাজারি শুনতে পাবে।” স্বাভাবিকভাবেই হযরত যয়নাব কোবরা,উম্মে কুলসুম ও পরিবারের বাকী সদস্যরা উদ্বিগ্ন অবস্থায় ছিলেন। হঠাৎ করে এক প্রচণ্ড চীৎকারে সবাই বুঝতে পারলেন। একটি আওয়াজ চারিদিকে প্রতিধ্বনিত হতে লাগল-

تهدّمت و الله ارکان الهدی و انطمست اعلام التّقی و انفصمت العروة قتل ابن عمّ المصطفی قتل الوصیّ المجتبی قتل علیّ المرتضی قتله اشقی الشقیا

“দীনের স্তম্ভ ধ্বসে পড়েছে,তাকওয়ার ধ্বজা ভূলুন্ঠিত হয়েছে,মজবুত বন্ধন ছিন্ন হয়ে পড়েছে,আলী মোর্তজাকে হত্যা করা হয়েছে,তাকে নিকৃষ্টতম ব্যক্তি হত্যা করেছে।”

(ইনসানে কামেল বই থেকে সংকলিত)

  41
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

latest article

জুমার নামাজ ও জামাতের নামাজে মহিলারা ...
রমজানে দোয়া ও মোনাজাত
রজব মাসের গুরুত্ব
সূরা আত তাওবা; (১১তম পর্ব)
মহানবী (স.) হতে বর্ণিত ৪০টি হাদীস (২)
একটি আধ্যাত্মিক আহবান
কোরআন শরীফ অনুবাদের ইতিহাস
আলী (আ) এর দৃষ্টিতে একটি আদর্শ সমাজের ...
বিস্ময়কর কুরআন : গ্যারি মিলার- পর্ব-১
রসিকতার ইসলামী সীমারেখা

 
user comment