বাঙ্গালী
Tuesday 20th of August 2019
  1587
  0
  0

১৫ই শাবান রাত ও দিনের আমল

১৫ই শাবান রাত ও দিনের আমল

১৫ই শাবান রাত (শবে বরাত) অত্যন্ত বরকতময় এক রাত। ইমাম জাফার সাদিক আলাইহিস সালাম থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন : ইমাম মুহাম্মাদ বাকের আলাইহিস সালামকে ১৫ই শাবান রাতের ফজিলত ও তাত্পর্য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন : লাইলাতুল কদর (শবে কদর)-এর পর সর্বশ্রেষ্ঠ রজনী। ঐ রাতে মহান আল্লাহ্ বান্দাদের প্রতি নিজের অনুগ্রহ প্রদান করেন... অতএব, এ রাতে মহান আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের লক্ষ্যে চেষ্টা চালানো উচিত। রাতটি হল এমন, মহান আল্লাহ্ তাঁর পবিত্র সত্তার কসম খেয়েছেন যে, তিনি তার নিকট প্রার্থনাকারী কোন বান্দাকে এ রাতে শূণ্য হাতে ফিরিয়ে দেন না, তবে গুনাহ বিষয়ক কোন চাওয়াকে পূরণ করা হয় না...
২৫৫ হিজরির ১৫ই শাবান ভোরে ইরাকের সামেরা শহরে যুগের ইমাম হযরত মাহদি আলাইহিস সালাম জন্ম লাভ করেন। যে বিষয়টি এ রাতের তাত্পর্যকে আরো বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়।

১৫ই শাবান রাত তথা শবে বরাতের কতিপয় আমল :

(১) গোসল করা; যা গুনাহসমূহ হ্রাসের কারণ হয়।
(২) নামায, দোয়া ও ইস্তিগফারের মধ্য দিয়ে রাত্র জাগরণ। রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি এ রাতে জেগে থাকে তার অন্তর ঐ দিন মৃত্যুবরণ করবে না যেদিন সকলের অন্তর মারা যাবে।
(৩) এ রাতের শ্রেষ্ঠ আমল হচ্ছে ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালামের যিয়ারত পাঠ করা। (এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত যেয়ারত হচ্ছে ছাদের উপরে খোলা আকাশে নীচে দাঁড়িয়ে ডান ও বাম দিকে তাকানোর পর আকাশের দিকে মাথা উঁচু করে ((اَلسَّلامُ عَلَیْكَ یا اَبا عَبْدِاللّهِ، اَلسَّلامُ عَلَیْكَ وَ رَحْمَةُاللّهِ وَ بَرَكاتُهُ)) –আস সালামু আলাইকা ইয়া আবা আব্দিল্লাহ, আস-সালামু আলাইকা ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু- বাক্যদ্বয় পাঠ করে তাঁর যেয়ারত করা। যে কেউ যে কোন স্থান থেকে যে কোন সময় এভাবে যেয়ারত করবে তার জন্য হজ্ব ও উমরার সওয়াব লেখা হবে বলে আশা করা যায়।
(৪) ইমাম মাহদি আলাইহিস সালামের যেয়ারতের স্থলে যে সালাওয়াত পাঠ করা হয় তা পাঠ করা :
اَللّهُمَّ بِحَقِّ لَیْلَتِنا (هذِهِ) وَ مَوْلُودِها
وَ حُجَّتِكَ وَ مَوْعُودِهَا الَّتى قَرَنْتَ اِلى فَضْلِها فَضْلاً فَتَمَّتْ كَلِمَتُكَ
صِدْقاً وَ عَدْلاً لا مُبَدِّلَ لِكَلِماتِكَ وَلا مُعَقِّبَ لاِیاتِكَ نُورُكَ الْمُتَاَلِّقُ
وَ ضِیاؤُكَ الْمُشْرِقُ وَ الْعَلَمُ النُّورُ فى طَخْیاءِ الدَّیْجُورِ الْغائِبُ
الْمَسْتُورُ جَلَّ مَوْلِدُهُ وَ كَرُمَ مَحْتِدُهُ وَالْمَلاَّئِكَةُ شُهَّدُهُ وَاللّهُ ناصِرُهُ
وَ مُؤَیِّدُهُ اِذا آنَ میعادُهُ وَالْمَلاَّئِكَةُ اَمْد ادُهُ سَیْفُ اللّهِ الَّذى لا یَنْبوُ
وَ نُورُهُ الَّذى لا یَخْبوُ وَ ذوُالْحِلْمِ الَّذى لا یَصْبوُا مَدارُ الَّدهْرِ
وَ نَوامیسُ الْعَصْرِ و َوُلاةُ الاْمْرِ وَالْمُنَزَّلُ عَلَیْهِمْ ما یَتَنَزَّلُ فى لَیْلَةِ
الْقَدْرِ وَ اَصْحابُ الْحَشْرِ وَالنَّشْرِ تَراجِمَةُ وَحْیِهِ وَ وُلاةُ اَمْرِهِ وَ نَهْیِهِ
اَللّهُمَّ فَصَلِّ عَلى خاتِمِهْم وَ قآئِمِهِمُ الْمَسْتُورِ عَنْ عَوالِمِهِمْ
اَللّهُمَّ وَ اَدْرِكَ بِنا اءَیّامَهُ وَظُهُورَهُ وَقِیامَهُ وَاجْعَلْنا مِنْ اَنْصارِهِ وَاقْرِنْ ثارَنا
بِثارِهِ وَاكْتُبْنا فى اَعْوانِهِ وَ خُلَصاَئِهِ وَ اَحْیِنا فى دَوْلَتِهِ ناعِمینَ
وَ بِصُحْبَتِهِ غانِمینَ وَ بِحَقِّهِ قآئِمینَ وَ مِنَ السُّوءِ سالِمینَ یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ
وَالْحَمْدُلِلّهِ رَبِّ الْعالَمینَ وَ صَلَواتُهُ عَلى سَیِّدِنا مُحَمَّدٍ
خاتَمِ النَّبِیّینَ وَ الْمُرْسَلینَ وَ عَلى اَهْلِ بَیْتِهِ الصّادِقینَ وَ عِتْرَتِهَ
النّاطِقینَ وَالْعَنْ جَمیعَ الظّالِمینَ واحْكُمْ بَیْنَنا وَ بَیْنَهُمْ یا اَحْكَمَ الْحاكِمینَ .

(৫) ১৫ শাবান রাতে পড়ার জন্য হযরত ইমাম সাদিক (আ.) যে দোয়ার শিক্ষা দিয়েছেন :
اَللّهُمَّ اَنْتَ الْحَىُّ الْقَیُّومُ الْعَلِىُّ الْعَظیمُ الْخالِقُ
الرّازِقُ الْمُحْیِى الْمُمیتُ الْبَدىَّءُ
الْبَدیعُ لَكَ الْجَلالُ وَ لَكَ الْفَضْلُ وَ لَكَ الْحَمْدُ وَ لَكَ الْمَنُّ وَ لَكَ الْجُودُ
وَ لَكَ الْكَرَمُ وَ لَكَ الاْمْرُ وَ لَكَ الْمَجْدُ وَ لَكَ الْشُّكْرُ وَحْدَكَ لاشَریكَ لَكَ
یا واحِدُ یا اَحَدُ یا صَمَدُ یا مَنْ لَمْ یَلِدْ وَ لَمْ یُولَدْ وَ لَمْ یَكُنْ لَهُ
كُفُواً اَحَدٌ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ وَاْغفِرْ لى وَارْحَمْنى وَاكْفِنى
ما اَهَمَّنى وَاقْضِ دَیْنى وَ وَسِّعْ عَلَىَّ فى رِزْقى فَاِنَّكَ فى هذِهِ اللَّیْلَةِ
كُلَّ اَمْرٍ حَكیمٍ تَفْرُقُ وَ مَنْ تَشاَّءُ مِنْ خَلْقِكَ تَرْزُقُ فَارْزُقْنى وَ اَنْتَ
خَیْرُ الرّازِقینَ فَاِنَّكَ قُلْتَ وَ اَنْتَ خَیْرُ الْقاَّئِلینَ النّاطِقینَ وَاسْئَلوُا اللّهَ
مِنْ فَضْلِهِ فَمِنْ فَضْلِكَ اَسْئَلُ وَ اِیّاكَ قَصَدْتُ وَابْنِ نَبِیِّكَ اعْتَمَدْتُ وَ لَكَ
رَجَوْتُ فَارْحَمْنى یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ.

(৬) এ রাতে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহ যে দোয়া পাঠ করতেন তা পাঠ করা :
اَللّهُمَّ اقْسِمْ لَنا مِنْ خَشْیَتِكَ ما یَحُولُ بَیْنَنا
وَ بَیْنَ مَعْصِیَتِكَ وَ مِنْ طاعَتِكَ ما تُبَلِّغُنا بِهِ رِضْوانَكَ وَ مِنَ الْیَقینِ ما
یَهُونُ عَلَیْنا بِهِ مُصیباتُ الدُّنْیا اَللّهُمَّ اَمْتِعْنا بِاَسْماعِنا وَ اَبْصارِنا
وَ قُوَّتِنا ما اَحْیَیْتَنا وَاجْعَلْهُ الْوارِثَ مِنّا وَاجْعَلْ ثارَنا عَلى مَنْ ظَلَمَنا
وَانْصُرنا عَلى مَنْ عادانا وَلا تَجْعَلْ مُصیبَتَنا فى دینِنا وَلا تَجْعَلِ
الدُّنْیا اَكْبَرَ هَمِّنا وَلا مَبْلَغَ عِلْمِنا وَلا تُسَلِّطْ عَلَیْنا مَنْ لا یَرْحَمُنا
بِرَحْمَتِكَ یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ.
এটি পরিপূর্ণ এক দোয়া। অন্যান্য সময়েও এ দোয়া পড়ার বিশেষ ফজিলত রয়েছে। আওয়ালি আল-লাআলী থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহি সর্বদা এ দোয়া পাঠ করতেন।

(৭) জাওয়ালের সময় শাবান মাসের প্রতিদিন যে সালাওয়াত পাঠ করা হয় তা পাঠ করা।
(৮) দোয়ায়ে কুমাইল পাঠ করা।
(৯) ‘সুবহানাল্লাহ’, ‘আল-হামদু লিল্লাহ’, ‘আল্লাহু আকবার’ ও ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ –প্রত্যেকটি যিকরকে ১ শত বার করে বলা। যাতে মহান আল্লাহ্ তার পূর্বের গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দেন এবং তার পার্থিব ও পরকালীন চাওয়াকে পূরণ করেন।
(১০) শেইখ তার মিসবাহ গ্রন্থে আবু ইয়াহিয়া থেকে ১৫ শাবান রাতের ফজিলতের বিষয়ে বর্ণিত একটি রেওয়ায়েতে বর্ণনা করেছেন যে, তিনি বলেন : ইমাম সাদিক আলাইহিস সালামকে জিজ্ঞেস করলাম এ রাতে সর্বোত্তম দোয়া কোনটি? উত্তরে তিনি বললেন : এশার নামায আদায়ের পর দুই রাকাত নামায আদায় কর; প্রথম রাকাতে সূরা হামদের পর সূরা কাফিরুন এবং দ্বিতীয় রাকাতে সূরা হামদের পর সূরা তাওহিদ পাঠ করা। সালামের মাধ্যমে নামায শেষ করার পর হযরত ফাতেমা যাহরা সালামুল্লাহি আলাইহার তসবিহ পাঠ করা। অতঃপর নিম্নোক্ত দোয়াটি পাঠ করা :
یا مَنْ اِلَیْهِ مَلْجَاءُ الْعِبادِ فِى الْمُهِمّاتِ وَ اِلَیْهِ یَفْزَعُ الْخَلْقُ فىِ الْمُلِمّاتِ
یا عالِمَ الْجَهْرِ وَالْخَفِیّاتِ وَ یا مَنْ لا تَخْفى عَلَیْهِ خَواطِرُ الاْوْهامِ
وَ تَصَرُّفُ الْخَطَراتِ یا رَبَّ الْخَلایِقِ وَالْبَرِیّاتِ یا مَنْ بِیَدِهِ مَلَكُوتُ
الاْرَضینَ وَالسَّمواتِ اَنْتَ اللّهُ لا اِلهَ اِلاّ اَنْتَ اَمُتُّ اِلَیْكَ بِلا اِلهَ اِلاّ اَنْتَ
فَیا لا اِلهَ اِلاّ اَنْتَ اجْعَلْنى فى هِذِهِ اللَّیْلَةِ مِمَّنْ نَظَرْتَ اِلَیْهِ
فَرَحِمْتَهُ وَ سَمِعْتَ دُعاَّئَهُ فَاَجَبْتَهُ وَ عَلِمْتَ اسْتِقالَتَهُ فَاَقَلْتَهُ
وَ تَجاوَزْتَ عَنْ سالِفِ خَطیئَتِهِ وَ عَظیمِ جَریرَتِهِ فَقَدِ اسْتَجَرْتُ بِكَ
مِنْ ذُنُوبى وَ لَجَاْتُ اِلَیْكَ فى سَتْرِ عُیُوبى اَللّهُمَّ فَجُدْ عَلَىَّ بِكَرَمِكَ
وَ فَضْلِكَ وَاحْطُطْ خَطایاىَ بِحِلْمِكَ وَ عَفْوِكَ وَ تَغَمَّدْنى فى هذِهِ
اللَّیْلَةِ بِسابِغِ كَرامَتِكَ وَاجْعَلْنى فیها مِنْ اَوْلِیاَّئِكَ الَّذینَ اجْتَبَیْتَهُمْ
لِطاعَتِكَ وَاخْتَرْتَهُمْ لِعِبادَتِكَ وَ جَعَلْتَهُمْ خالِصَتَكَ وَ صِفْوَتَكَ
اَللّهُمَّ اجْعَلْنى مِمَّنْ سَعَدَ جَدُّهُ وَ تَوَفَّرَ مِنَ الْخَیْراتِ حَظُّهُ وَاجْعَلْنى مِمَّنْ
سَلِمَ فَنَعِمَ وَ فازَ فَغَنِمَ وَاكْفِنى شَرَّ ما اَسْلَفْتُ وَاعْصِمْنى مِنَ الاِْزدِیادِ
فى مَعْصِیَتكَ وَ حَبِّبْ اِلَىَّ طاعَتَكَ وَ ما یُقَرِّبُنى مِنْكَ وَ یُزْلِفُنى عِنْدَكَ
سَیِّدى اِلَیْكَ یَلْجَاءُ الْهارِبُ وَ مِنْكَ یَلْتَمِسُ الطّالِبُ وَ عَلى كَرَمِكَ
یُعَوِّلُ الْمُسْتَقیلُ التّائِبُ اَدَّبْتَ عِبادَكَ بالتَّكَرُّمِ وَ اَنْتَ اَكْرَمُ الاْكْرَمینَ
وَ اَمَرْتَ بِالْعَفْوِ عِبادَكَ وَ اَنْتَ الْغَفُورُ الرَّحیمُ اَللّهُمَّ فَلا تَحْرِمْنى
ما رَجَوْتُ مِنْ كَرَمِكَ وَلا تُؤْیِسْنى مِنْ سابِغِ نِعَمِكَ وَلا تُخَیِّبْنى مِنْ
جَزیلِ قِسَمِكَ فى هذِهِ اللَّیْلَةِ لاِهْلِ طاعَتِكَ وَاجْعَلْنى فى جُنَّةٍ مِنْ
شِرارِ بَرِیَّتِكَ رَبِّ اِنْ لَمْ اَكُنْ مِنْ اَهْلِ ذلِكَ فَاَنْتَ اَهْلُ الْكَرَمِ وَالْعَفْوِ
وَالْمَغْفِرَةِ وَ جُدْ عَلَىَّ بِما اَنْتَ اَهْلُهُ لا بِما اَسْتَحِقُّهُ فَقَدْ حَسُنَ ظَنّى
بِكَ وَ تَحَقَّقَ رَجاَّئى لَكَ وَ عَلِقَتْ نَفْسى بِكَرَمِكَ فَاَنْتَ اَرْحَمُ الرّاحِمینَ وَ اَكْرَمُ الاْكْرَمینَ
اَللّهُمَّ وَاخْصُصْنى مِنْ كَرَمِكَ بِجَزیلِ
قِسَمِكَ وَاَعُوذُ بِعَفْوِكَ مِنْ عُقُوبَتِكَ وَاغْفِر لِىَ الَّذنْبَ الَّذى یَحْبِسُ عَلَىَّ الْخُلُقَ
وَ یُضَیِّقُ عَلىَّ الرِّزْقَ حَتّى اَقُومَ بِصالِحِ رِضاكَ وَ اَنْعَمَ
بِجَزیلِ عَطاَّئِكَ وَاَسْعَدَ بِسابِغِ نَعْماَّئِكَ فَقَدْ لُذْتُ بِحَرَمِكَ
وَ تَعَرَّضْتُ لِكَرَمِكَ وَاسْتَعَذْتُ بِعَفْوِكَ مِنْ عُقُوبَتِكَ وَ بِحِلْمِكَ مِنْ
غَضَبِكَ فَجُدْ بِما سَئَلْتُكَ وَاَنِلْ مَا الْتَمَسْتُ مِنْكَ اَسْئَلُكَ بِكَ لابِشَىءٍ هُوَ اَعْظَمُ مِنْكَ
অতঃপর সিজদাতে গিয়ে ‘ইয়া রাব্বি’ ২০ বার, ইয়া আল্লাহ ৭ বার, লা হাওলা ওয়া লা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ৭ বার, মাশা আল্লাহ ১০ বার, লা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ১০ বার বলা এবং মহানবি (স.) ও তাঁর বংশধর (আ.) এর উপর ১০ বার দরুদ পাঠ করা। অতঃপর আল্লাহর নিকট নিজের মনের চাহিদা ব্যক্ত করা। আল্লাহর কসম এ আমলের কারণে তোমার চাওয়া যদি বর্ষার ফোঁটারাজির সমপরিমাণেও হযে থাকে মহান আল্লাহ তা পূরণ করবেন....
(১১) শেইখ তুসি ও কাফয়ামি বলেছেন : এ রাতে নিম্নোক্ত দোয়াটি পাঠ করা :
اِلهى تَعَرَّضَ لَكَ فى هذَا اللَّیْلِ الْمُتَعَرِّضُونَ
وَ قَصَدَكَ الْقاصِدُونَ وَ اَمَّلَ فَضْلَكَ وَ مَعْرُوفَكَ الطّالِبُونَ وَ لَكَ فى
هذَا اللّیْلِ نَفَحاتٌ وَ جَواَّئِزُ وَ عَطایا وَ مَواهِبُ تَمُنُّ بِها عَلى مَنْ تَشاَّءُ
مِنْ عِبادِكَ وَ تَمْنَعُها مَنْ لَمْ تَسْبِقْ لَهُ الْعِنایَةُ مِنْكَ وَها اَنَا ذا عُبَیْدُكَ
الْفَقیرُ اِلَیْكَ الْمُؤَمِّلُ فَضْلَكَ وَ مَعْرُوفَكَ فَاِنْ كُنْتَ یا مَولاىَ تَفَضَّلْتَ
فى هذِهِ اللَّیْلَةِ عَلى اَحَدٍ مِنْ خَلْقِكَ وَ عُدْتَ عَلَیْهِ بِعائِدَةٍ مِنْ عَطْفِكَ
فَصَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ الطَّیِّبینَ الطّاهِرینَ الْخَیِّرینَ
الْفاضِلینَ وَجُدْ عَلَىَّ بِطَولِكَ وَ مَعْرُوفِكَ یا رَبَّ الْعالَمینَ وَ صَلَّى اللّهُ
عَلى مُحَمَّدٍخاتَمِ النَّبیّینَ وَ الِهِ الطّاهِرینَ وَ سَلَّمَ تَسْلیماً اِنَّ اللّهَ حَمیدٌ مَجیدٌ
اَللّهُمَّ اِنّى اَدْعُوكَ كَما اَمَرْتَ فَاسْتَجِبْ لى كَما وَعَدْتَ اِنَّكَ
لا تُخْلِفُ الْمیعادَ.
এ দোয়াটি রাতের শেষাংশে নামাযে শাফা’র পরও পড়া হয়।

(১২) আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহি থেকে বর্ণিত সিজদা ও দোয়া। তিনি সিজদাতে বলতেন :
سَجَدَ لَكَ سَوادى وَ خَیالى وَ آمَنَ بِكَ فؤادى هذِهِ یَداىَ وَ ماجَنَیْتُهُ
عَلى نَفْسى یا عَظیمُ [عَظیماً] تُرْجى لِكُلِّ عَظیمٍ اِغْفِرْ لِىَ الْعَظیمَ فَاِنَّهُ لایَغْفِرُ
الذَّنْبَ الْعَظیمَ اِلا الرَّبُّ الْعَظیمُ
অতঃপর সিজদা থেকে মাথা তুলে পূনরায় সিজদায় গিয়ে বলতেন :
اَعُوذُ بُنُورِ وَجْهِكَ الَّذى اَضائَتْ لَهُ السَّمواتُ
وَالاْرَضُونَ وَانْكَشَفَتْ لَهُ الظُّلُماتُ وَ صَلَحَ عَلْیْهِ اَمرُ الاْوَّلینَ
وَالاْخِرینَ مِنْ فُجاءَةِ نَقِمَتِكَ وَ مِنْ تَحْویلِ عافِیَتِكَ وَ مِنْ زَوالِ
نِعْمَتِكَ اَللّهُمَّ ارْزُقْنى قَلْباً تَقِیّاً نَقِیّاً وَ مِنَ الشِّرْكِ بَریئاً لا كافِراً ولا شَقِیّاً
عَفَّرْتُ وَجْهى فِى التُّرابِ
وَ حُقَّ لى اَنْ اَسْجُدَ لَكَ.
এ আমলের পর আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহ বললেন : আজ রাত হচ্ছে রুজি বণ্ঠনের রাত। এ রাতে মৃত্যুসমূহকে লেখা হয়, হজ্বে গমনকারীদের নাম লেখা হয়। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ্ এ রাতে নিজ বান্দাগণকে (গুনাহসমূহকে) ক্ষমা করেন, কালব গোত্রের ছাগলগুলোর গায়ের লোমের সংখ্যার চেয়ে অধিক পরিমাণে এবং মহান আল্লাহ্ ফেরেশতাদেরকে আসমান থেকে মক্কার দিকে প্রেরণ করেন।
(১৩) জনাব জাফারের নামায আদায় করা।
(১৪) এ রাতের বিশেষ নামাযগুলো আদায় করা। তম্মধ্যে ঐ নামাযটিও রয়েছে যে বিষয়ে আবু ইয়াহিয়া হযরত ইমাম বাকের ও সাদিক আলাইহিমাস সালাম থেকে রেওয়ায়েত করেছেন। আর তাঁদের দু’জন থেকে বিশ্বস্ত ৩০ ব্যক্তি এ বিষয়ে রেওয়ায়েত করেছেন যে, তারা বলেছেন : ১৫ই শাবান রাতে (দুই রাকাত করে) চার রাকাত নামায আদায় কর। প্রতি রাকাতে সূরা হামদের পর ১০০ বার সূরা তাওহিদ। অতএব, নামায শেষ হলে বল :
اَللّهُمَّ اِنّى اِلَیْكَ فَقیرٌ وَمِنْ
عَذاِبكَ خائِفٌ مُسْتَجیرٌ اَللّهُمَّ لا تُبَدِّلْ اِسْمى وَلا تُغَیِّرْ جِسْمى
وَلاتَجْهَدْ بَلاَّئى وَلا تُشْمِتْ بى اَعْداَّئى اَعُوذُ بِعَفْوِكَ مِنْ عِق ابِكَ
وَ اَعُوذُ بِرَحْمَتِكَ مِنْ عَذابِكَ وَ اَعُوذُ بِرِضاكَ مِنْ سَخَطِكَ وَ اَعُوذُبِكَ
مِنْكَ جَلَّ ثَناَّؤُكَ اَنْتَ كَما اَثْنَیْتَ عَلى نَفْسِكَ وَ فَوْقَ ما یَقُولُ الْقآئِلُونَ.

১৫ই শাবান দিনের আমল :
এ দিনে যুগের ইমাম হযরত হুজ্জাত ইবনুল হাসান (আমাদের জীবন তাঁর উপর উত্সর্গ) জন্মগ্রহণ করেন। এ দিবসে রোজা রাখা ও গোসল করা মুস্তাহাব এবং পাশাপাশি তাঁর আবির্ভাবের জন্য বেশী বেশী দোয়া করা।#তিবইয়ান

  1587
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

latest article

      শিয়াদের মৌলিক বিশ্বাস (পর্ব-৪):ইমামত
      ইমাম মাহদী (আ.)এর আগমন একটি অকাট্য বিষয়
      ইমাম মাহ্দী (আ.)-এর আবির্ভাব কালের ...
      আহলে সুন্নাতের বর্ণিত হাদীস ও ...
      বুদ্ধিবৃত্তির দৃষ্টিতে ইমামের ...
      পবিত্র কোরআন ও হাদীসের আলোকে ইমাম ...
      শবে বরাত
      আল্লাহকে কি চর্মচক্ষু দ্বারা দেখা ...
      আহলে সুন্নাতের বর্ণিত হাদীস ও ...
      ইমাম মাহদী (আ.)-এর জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ...

 
user comment