বাঙ্গালী
Monday 25th of March 2019
  374
  0
  0

আল আযহারের নতুন মুফতির মতামত সংক্রান্ত বিষয়ে সাক্ষাতকার

আল আযহারের নতুন মুফতির মতামত সংক্রান্ত বিষয়ে সাক্ষাতকার

আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: তাঁর হস্তগত তথ্যাদি সঠিক নয়... আবনা : আল আযহারের নতুন মুফতির মতামত সম্পর্কে আপনার মন্তব্য কি? আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম (পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে)। আল আযহারের নতুন মুফতি ‘জনাব তাইয়েব' একজন তাকরীবি (মাযহাবসমূহের নিকটবর্তী করণে সচেষ্ট) আলেমগণের অন্যতম বলে আমি বিশ্বাসী। তিনি উগ্রবাদী চিন্তাভাবনা ও তাকফির (অপরকে কাফের বলা) চিন্তার সম্পূর্ণ বিরোধী। মিসরের টেলিভিশন ও বিভিন্ন সেমিনারে তিনি বেশ কয়েকট গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রেখেছেন যা প্রসংশনীয়। আমাদের সাথে তার বন্ধুত্ব রয়েছে। তিনি যখন আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান হিসেবে মনোনিত হয়েছেন আমি তখনই তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছি এবং আমি পূনরায় তাকে এ পদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। কিন্তু সম্প্রতিকালে তার মতামত সম্পর্কে বলতে হয় যে, আমাদের উচিত ‘তথ্য প্রকাশে স্বাধীনতা' এবং ‘পরিকল্পনামূলক প্রচার' এ দু'টি বিষয়ের মধ্যে পার্থক্য রাখা। অর্থাৎ যখন একটি মাযহাবের সত্যতা অপর এক ইসলামী মাযহাবের অনুসারীর জন্য প্রমাণিত হয় তখন এ ক্ষেত্রে সেই মাযহাব অনুসরণের বিষয়ে সে স্বাধীন। কিন্তু সরকারের সহযোগিতায় কোন মাযহাবের অনুসারীদের অঞ্চলে অপর মাযহাবের পরিকল্পিত প্রচারের কথাটি ভিন্ন। এ দু'টির মধ্যে অবশ্যই আমাদেরকে পার্থক্য রাখতে হবে। আমরা দ্বিতীয় পন্থাটিকে পছন্দ করি না। আর মাযহাবসমূহের সন্নিকট করণ ও একে অপরের সহযোগিতার উপর আমরা অধিক গুরুত্বারোপ করে থাকি। কিন্তু বিতর্কিত বিষয়গুলোতে সর্বাগ্রে জ্ঞানীজনের মাঝে আলোচনা হওয়া উচিত। যদি আলোচনা ও সংলাপের পরও কোন চূড়ান্ত ফলাফলে না পৌছানো যায় তবে তখন সাধারণ জনগণের সম্মুখে সে বিষয়গুলো উত্থাপন করাতে কোন সমস্যা নেই। আবনা: অতএব, আপনিও এ অপবাদগুলো নাকচ করছেন। আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: আমি বিশ্বাস করি যে, শিয়ারা কোনরূপ পরিকল্পিত ও সুশৃখংল প্রচারণা অন্যান্য মাযহাবের অঞ্চলে চালায় না। বরং তারা শুধুমাত্র নিজেদের ফতোয়ার স্বপক্ষে আত্মরক্ষা করে থাকে, আর এটা প্রতিটি মাযহাবের নিশ্চিত অধিকার। ইরান এবং শিয়া মনীষীরা কোন সুন্নী দেশেই নিয়মতান্ত্রিক ও পরিকল্পিতভাবে তাবলিগ করে না। আর আমি এ ঘোষণা দিচ্ছি, যে সকল তথ্য আল আযহারের মুফতি জনাব আত তায়েবের নিকট পৌছেছে সেগুলো সঠিক নয়। আবনা: আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয় শিয়াদের বিরুদ্ধে এমন কঠোরভাবে অবস্থান ইতিপূর্বে কি কখনো গ্রহণ করেছে? আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: আমার দৃষ্টিতে তার এ মন্তব্যগুলোর মাধ্যমে শিয়াদের বিরুদ্ধে তার অবস্থান গ্রহণ বোঝায় না। তার কথাবার্তা হতে এ ধরনের কিছু আমার হস্তগত হয়নি। আমার নিকট যে তথ্য আছে তার ভিত্তিতে আমি মিসরের সকল প্রকার শিয়া মাযহাবের তাবলীগ ও প্রচারের তথ্য নাকচ করছি। একটি বিশেষ মাযহাবের অনুসারীদের অঞ্চলে অপর একটি মাযহাবের তাবলীগ বা প্রচারকে আমরা মাযহাবসমূহের সন্নিকট করণ বিশ্ব সংস্থার নীতি বিরোধী বলে জ্ঞান করি। আল আযহার এবং তাইয়েব সর্বদা মাযহাবসমূহের সন্নিকট করণে সচেষ্ট ছিল এবং আছে। আবনা: আল আযহারের নতুন মুফতি তাকরীব তথা মাযহাবসমূহের সন্নিকট করণের ক্ষেত্রে শালতুতের ন্যায় ব্যক্তিত্বদের পথ কিভাবে অব্যাহত রাখতে পারেন বলে আপনি মনে করেন? আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: তিনি উগ্রবাদী ও শিয়াদেরকে কাফের আখ্যায়িতকারীদের পথরোধ করা, ‘ইজতিহাদে স্বাধীনতা' দান শুধুমাত্র আহকাম বা শরয়ী বিধি বিধানের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ না করে বিশ্বাসগত, সামাজিক ইত্যাদী বিষয়ে ইজতিহাদে স্বাধীনতা দান করার মাধ্যমে এবং মাযহাবসমূহকে কোরআনিক সংলাপের প্রতি উৎসাহিত করার মাধ্যমে এ পথ অব্যাহত রাখা সম্ভব বলে আমি বিশ্বাসী। আমরা ঊনবিংশ শতাব্দির মাঝামাঝিতে মাযহাবসমূহের সন্নিকট করণের ব্যাপারে প্রথম উদ্যোক্তা হিসেবে আল আযহারকে চিনি। আবনা: তার ইরান সফর এবং শিয়া মাযহাব সম্পর্কে অতি নিকট হতে পরিচিতি হওয়ার ব্যাপারে আপনার মতামত কি? আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: আমরা তাকে ইসালামী প্রজাতন্ত্র ইরানে স্বাগত জানাই এবং ইরানের সংস্কৃতি ও বিশ্বের অন্যান্য মুসলমানদের সংস্কৃতির মাঝে সুসম্পর্ক দিনে দিনে জোরদার হবে বলে আমরা বিশ্বাসী। আবনা: আপনার দৃষ্টিতে কোমের হাওযা ইলমিয়া এবং আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঝে ইলমি সম্পর্ক গড়ার লক্ষ্যে কি কি পন্থা অবলম্বন করা উচিত? আয়াতুল্লাহ তাসখিরী: এ ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত পন্থাগুলোর শরণাপন্ন হওয়া যেতে পারে বলে বিশ্বাসী: (ক) কোমের হাওযা ইলমিয়া এবং আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঝে বিশেষজ্ঞ টিমের আদন প্রদান। (খ) কোরআনিক সংলাপ ও তাকরীব পরিচিতির বিভিন্ন রাস্তার উন্মোচন। (গ) কোমের হাওযা ইলমিয়া এবং ইরানের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণকে আল আযহারে শিক্ষকতার সুযোগ করে দেয়া, তদ্রুপভাবে আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণকে তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের এলাহিয়্যাত বিভাগে অথবা মাযাহেব বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার সুযোগ করে দেয়া। (ঘ) এ সম্পর্ক জোরদার করার লক্ষ্যে দু'টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঝে স্কলারশীপ সংক্রান্ত চুক্তিনামা স্বাক্ষর। আবনা: মূল্যবান সময় দেয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। বোরহান মাহমুদী অনুবাদ : আলী


source : www.abna.ir
  374
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

latest article

      ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় হামাসের ২ ...
      'গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলার শরিক ...
      ইয়েমেনে শিশুদের ওপর হামলায় মার্কিন ...
      আগ্রাসীদের রাজধানী আর নিরাপদ থাকবে ...
      গ্রিসে ইসলামের প্রসার বাড়ছে
      ঘুড়ি ও বেলুনে অসহায় ইসরাইলের নয়া ...
      সৌদি জোটের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ
      ইয়েমেনিদের হামলায় ৫৮ সৌদি সেনা নিহত
      শুক্রবার দেখা যাবে শাওয়াল মাসের নতুন ...
      ইসরাইল-বিরোধী সংগ্রাম জোরদারের শপথে ...

 
user comment