বাঙ্গালী
Monday 22nd of July 2019
  719
  0
  0

দিক দর্শন : শবেবরাত : করণীয় ও বর্জনীয়

মোহাম্মদ নাজমুল হুদা খান : আরবি চান্দ্র বর্ষের অষ্টম মাস শা'বান-এর মধ্যবর্তী রাত তথা ১৪ তারিখ দিবাগত রাত ‘শবেবরাত' হিসেবে পরিচিত। শবেবরাত শব্দযুগল ফার্সী। এর আরবি পরিভাষা ‘লাইলাতুল বারাআত'। ‘লাইলাতুন' শব্দের অর্থ রাত আর ‘বারাআত' শব্দের অর্থ মুক্তি। অতএব লাইলাতুল বারাআত শব্দের অর্থ মুক্তির রজনী। বিভিন্ন তাফসীর গ্রন্থে এ রাত বুঝাতে ‘লাইলাতুল বারাআত' শব্দযুগল ব্যবহৃত হয়েছে। হাদীসে নববীতে এ রাতের ক্ষেত্রে "লাইলাতুন নিসফি মিন শা'বান" পরিভাষাটি ব্যবহৃত হয়েছে। এ রাতের বিভিন্ন নাম রয়েছে। তাফসীরে কাশশাফে এ রাতের চারটি নামের উল্লেখ রয়েছে। যেমন : আল লাইলাতুল মুবারাকাহ, লাইলাতুল বারাআহ, লাইলাতুস সাক ও লাইলাতুর রাহমাহ। তাফসীরে কাশশাফে এ রাতকে লাইলাতুল বারাআত নামে নামকরণ সম্পর্কে বর্ণিত আছে যে, কর আদায়কারী যখন কর আদায় করে তখন করদাতাদের জন্য মুক্তিনামা লিখে দেয়। অনুরূপভাবে মহান আল্লাহ এ রাতে তাঁর মুমিন বান্দাদের জন্য মুক্তিনামা লিখে দেন। (তাফসীরে কাশশাফ, খ- ৪, পৃষ্ঠা ১৭২) হযরত ইকরামা (রা.) বলেন, হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) লাইলাতুল কদরকে লাইলাতুত তা'যীম, শা'বানের মধ্যবর্তী রাতকে লাইলাতুল বারাআত ও দুই ঈদের রাতকে লাইলাতুল জায়িযাহ নামে নামকরণ করতেন। (তাফসীরে মাওয়ারদী, খ- ৬, পৃষ্ঠা ৩১৩)
শবেবরাতের ফজিলত
শবেবরাত এক মহিমান্বিত রজনী। এ রজনীতে দয়াময় আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আপন বান্দাদের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি প্রদান করেন এবং নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তি ছাড়া সকল মুমিন বান্দাকে ক্ষমার দানে অনুগৃহীত করেন।
হযরত মুআয ইবনে জাবাল (রা.) নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন : আল্লাহ তাআলা শা'বানের মধ্যবর্তী রাতে (অর্থাৎ শবেবরাতে) তাঁর সকল সৃষ্টির প্রতি দৃষ্টিপাত করেন। অতঃপর মুশরিক অথবা হিংসা-বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতীত সকল বান্দাহকে ক্ষমা করে দেন। (সহীহ ইবনে হিব্বান (অখ-) পৃষ্ঠা ১৫১৪, হাদীস নং ৫৬৬৫)
হযরত মুয়ায ইবনে জাবাল (রা.) বর্ণিত হাদীসটির সনদের প্রত্যেক বর্ণনাকারী অত্যন্ত বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য। হাফিয নূরুদ্দীন আল হায়সামী বলেন, উক্ত হাদীসটি ইমাম তাবারানী (র.) তদীয় আল মুজামুল কাবীর ও আল মুজামুল আওসাতের মধ্যে বর্ণনা করেছেন। এ দু'গ্রন্থের সকল রাবী সিকাহ বা নির্ভরযোগ্য। (মাজমাউয যাওয়াইদ, খ- ৮, পৃষ্ঠা ১২৬)
শায়খ নাসিরউদ্দিন আলবানী তদীয় ‘সিলসিলাতুল আহাদিসিস সহীহা' গ্রন্থে এ হাদীসটি উল্লেখ করত এ সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন- এ হাদীসটি সহীহ। একদল সাহাবী থেকে বিভিন্ন সনদে এটি বর্ণিত হয়েছে, যা একে অন্যকে শক্তিশালী করে। এ হাদীস বর্ণনাকারী সাহাবায়ে কিরাম হলেন- ১. হযরত মুআয ইবনে জাবাল (রা.) ২. আবু সা'লাবা আল খুশানী (রা.) ৩. আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) ৪. আবু মূসা আল আশআরী (রা.) ৫. আবু হুরায়রাহ (রা.) ৬. আবু বকর (রা.) ৭. আউফ ইবনে মালিক (রা.) ৮. হযরত আয়িশাহ (রা.)। (সিলসিলাতুল আহাদিসিস সহীহা, খ- ৩, পৃষ্ঠা ১৩৫, হাদীস নং ১১৪৪)
হাদীস শরীফে আছে, এ রাতে আল্লাহর তরফ থেকে ঘোষণা আসে : কোনো ক্ষমাপ্রার্থনাকারী আছো কি? আমি তাকে ক্ষমা করব। কোনো রিয্্ক প্রার্থনাকারী আছো কি? আমি তাকে রিয্্ক দান করব। কোনো বিপদগ্রস্থ আছো কি? আমি তাকে বিপদ থেকে মুক্ত করব। এমনি ঘোষণা সারা রাত চলতে থাকে।
মুমিন বান্দাগণ এ ঘোষণার আলোকে আপন চাহিদা অনুযায়ী আল্লাহর দয়া ও অনুগ্রহ লাভে ধন্য হয়। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.)-এর বর্ণনানুযায়ী এ রাতে সকল বিষয়ের সিদ্ধান্ত হয়। আর শবেকদরে তা দায়িত্বশীল ফেরেশতার নিকট সোপর্দ করা হয়।
হযরত আতা ইবনে ইয়াসার (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন- শা'বানের মধ্যবর্তী রাত তথা শবেবরাতে মানুষের জীবনকে পরিবর্তন করা হয় (অর্থাৎ জীবিতদের তালিকা থেকে মৃতদের তালিকায় স্থানান্তরিত করা হয়)। এমনকি একজন মানুষ মুসাফির হিসেবে বের হয় (সফরে বের হয়) অথচ তার নাম (ইতোমধ্যে) জীবিতদের তালিকা থেকে মৃতদের মধ্যে নিয়ে রাখা হয়ে গেছে। এমনিভাবে একজন মানুষ বিয়ে করে অথচ তার নাম (ইতোমধ্যে) জীবিতদের তালিকা থেকে মৃতদের মধ্যে নিয়ে রাখা হয়ে গেছে। (ইমাম আবদুর রায্্যাক আস সান‘আনী, মুসান্নাফ, খ- ০৪, পৃষ্ঠা ৩১৭)
প্রকাশ থাকে যে, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন প্রত্যেক রাতের শেষাংশে দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং আপন বান্দাদের উদ্দেশ্যে বলতে থাকেন, যে আমার কাছে দু‘আ করবে আমি তার দু‘আ কবুল করব, যে আমার কাছে চাইবে আমি তাকে দান করব, যে আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবে আমি তাকে ক্ষমা করব। বুখারী শরীফে আছে- হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, আমাদের রব আল্লাহ তা‘আলা প্রত্যেক রাতে, যখন রাতের শেষ এক-তৃতীয়াংশ বাকি থাকে তখন দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং বলতে থাকেন, যে আমার কাছে দু‘আ করবে আমি তার দু‘আ কবুল করব, যে আমার কাছে চাইবে আমি তাকে দান করব, যে আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবে আমি তাকে ক্ষমা করব (বুখারী, হাদীস নং ১১৭৫)। কিন্তু শবেবরাতের ক্ষেত্রে শেষ এক-তৃতীয়াংশ নয় বরং রাতের শুরুতেই মহান আল্লাহ দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং আপন সৃষ্টির প্রতি দৃষ্টিপাত করে বলতে থাকেন, কোনো ক্ষমাপ্রার্থনাকারী আছো কি? আমি তাকে ক্ষমা করব। কোনো রিয্্ক প্রার্থনাকারী আছো কি? আমি তাকে রিয্্ক দান করব। কোনো বিপদগ্রস্থ আছো কি? আমি তাকে বিপদ থেকে মুক্ত করব। এমন ঘোষণা সারা রাত চলতে থাকে।
শবেবরাত দু‘আ কবুলের অন্যতম রাত। এ রাতে আল্লাহ তা‘আলা বান্দাহর দু‘আ কবুল করেন। ইমাম আবদুর রায্্যাক আস সান‘আনী (র.) তাঁর ‘মুসান্নাফ' গ্রন্থে ইবনে ওমর (রা.)-এর একটি বর্ণনা স্বীয় সনদে উল্লেখ করেছেন। হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) বলেন- পাঁচ রাতে দু‘আ ফিরিয়ে দেয়া হয় না (অর্থাৎ দু‘আ কবুল হয়ে থাকে)। এ পাঁচ রাত হলো- জুম‘আর রাত, রজব মাসের প্রথম রাত, শা'বানের মধ্যবর্তী রাত তথা শবেবরাত ও দুই ঈদের রাত। (মুসান্নাফে আবদুর রায্্যাক, খ- ০৪, পৃষ্ঠা ৩১৭)
শবেবরাতে আমাদের করণীয়
বিশ্ববিখ্যাত মুসলিম পর্যটক ইবনে বতুতার সফরনামা ‘রিহলাতু ইবনে বতুতা'-এর মধ্যে ‘শা'বানের মধ্যবর্তী রাতে তাদের (মক্কাবাসীদের) রীতি' শিরোনামের অনুচ্ছেদে আছে, মক্কাবাসীদের নিকট এ রাত (শবেবরাত) মর্যাদাবান রাতসমূহের অন্তর্ভুক্ত। এ রাতে তারা তাওয়াফ, জামাআতে ও একাকী নামায আদায়, ওমরা ইত্যাদি নেক আমলের প্রতি মনোনিবেশ করতেন এবং মসজিদে হারামে দলবদ্ধভাবে জমায়েত হতেন। প্রত্যেক দলের একজন ইমাম থাকতেন। ... তারা একশত রাকাআত নামায পড়তেন। যার প্রত্যেক রাকাআতে সূরা ফাতিহা ও দশবার করে সূরা এখলাস পড়তেন। কেউ কেউ হিজ্্র-এ একাকী নামায পড়তেন। আবার কেউ বায়তুল্লাহ শরীফের তাওয়াফ করতেন এবং কেউ কেউ ওমরার উদ্দেশ্যে বের হতেন।
লাতায়িফুল মা‘আরিফ গ্রন্থে আছে, শামের অধিবাসী তাবিঈগণ যেমন খালিদ ইবনে মা'দান, মাকহুল, লুকমান ইবনে আমির (রা.) ও অন্যান্যগণ শা'বানের মধ্যবর্তী রাত তথা শবেবরাতকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিতেন এবং এ রাতে ইবাদত-বন্দেগিতে নিমগ্ন হতেন। (ইবনে রজব, লাতায়িফুল মা‘আরিফ, পৃষ্ঠা ১৯০)
ইবনে তায়মিয়া বলেন, সলফে সালিহীনের কেউ কেউ এ রাতকে সালাত আদায়ের জন্য নির্দিষ্ট করে নিতেন। (ইকতিদাউস সিরাত আল মুস্তাকীম, পৃষ্ঠা ২৫৮)
সলফে সালিহীনের অনুসরণে শবেবরাতে আমরা বিভিন্ন ধরনের ইবাদত বন্দেগিতে মনোনিবেশ করতে পারি। যেমন :
(ক) রাতে জাগ্রত থাকা : ইবাদত বন্দেগির উদ্দেশ্যে শা'বানের মধ্যবর্তী রাতে জাগ্রত থাকা মুস্তাহাব। আরব-অনারবে স্বীকৃত হানাফী মাযহাবের প্রখ্যাত ফতওয়ার কিতাব ফতওয়ায়ে শামী'তে শবেবরাতে জাগ্রত থাকাকে মানদুব তথা মুস্তাহাব বলা হয়েছে। ফতওয়ায়ে শামী ২য় খ-ের ‘বাবুল বিতর ওয়ান নাওয়াফিল'-এর মধ্যে আছে- মুস্তাহাব আমলের মধ্যে রয়েছে সফরে বের হওয়ার সময় এবং সফর থেকে ফিরে আসার পর দুই রাকা‘আত নামায পড়া, তাহাজ্জুদের নামায পড়া... এবং দুই ঈদের রাত, শবেবরাত, রামাদানের শেষ দশ রাত ও যিলহজ্জের প্রথম রাতে জাগ্রত থাকা। (ফতওয়ায়ে শামী, খ- ২, পৃষ্ঠা ২৫-২৭)
মারাকিল ফালাহ গ্রন্থে আছে- শবেবরাতে জাগ্রত থাকা মুস্তাহাব। কেননা, এটি উক্ত বছরের গুনাহকে মিটিয়ে দেয়। (মারাকিল ফালাহ, খ- ১, পৃষ্ঠা-১৭৪) এতে আরো আছে শবেবরাতে জাগ্রত থাকার অর্থ হলো, রাতের অধিক সময় আনুগত্যমূলক কাজে ব্যস্ত থাকা। কেউ কেউ বলেন, রাতের কিছু অংশ কুরআন তিলাওয়াত করবে অথবা তিলাওয়াত শুনবে অথবা হাদীস পাঠ করবে কিংবা পাঠ শুনবে, তাসবীহ-তাহলীল করবে অথবা দরুদ শরীফ পড়বে। (মারাকিল ফালাহ, খ- ১, পৃষ্ঠা ১৭৪,)
(খ) কবর যিয়ারত করা ও মৃত আত্মীয়স্বজন ও মুসলমানদের জন্য মাগফিরাত কামনা করা : শবেবরাতে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর বিশেষ আমলের মধ্যে রয়েছে যে, তিনি এ রাতে জান্নাতুল বাকি কবরস্থান যিয়ারত করেছেন এবং মৃত মুমিনদের জন্য দুআ-ইস্তিগফার করেছেন। হযরত শাহ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী (র.) বলেছেন- শবেবরাতে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আমলের মধ্যে ছাবিত আছে যে, তিনি মুমিন নারী-পুরুষ ও শহীদদের মাগফিরাত কামনার জন্য কবরস্থানে গমন করেছেন। (মা ছাবাতা বিস সুন্নাহ ফী আয়্যামিস সানাহ, শাহরু শা'বান, আল মাকালাতুস সালিসাহ) সুতরাং এ রাতে কবরস্থান যিয়ারত করা, মৃত আত্মীয় স্বজন, পিতা-মাতা ও মুসলমানদের জন্য দু‘আ করা এবং তাদের মাগফিরাত কামনা করা উত্তম কাজ।
(গ) আল্লাহর দরবারে দু‘আ করা : হাদীস শরীফে আছে, এ রাতে আল্লাহ তাআলা তাঁর সকল সৃষ্টির প্রতি দৃষ্টিপাত করেন। অতঃপর মুশরিক ও হিংসা বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতীত সকল বান্দাহকে ক্ষমা করে দেন। অন্য বর্ণনায় আছে, এ রাতে আল্লাহ পাক এই বলে আহবান করেন : তোমাদের মধ্যে কি কোনো ক্ষমা প্রার্থনাকারী আছে? আমি তাকে ক্ষমা করে দেব। কোনো প্রার্থনাকারী কি আছে? আমি তার চাহিদা পূর্ণ করে দেব। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, যেই চাইবে তাকে দান করা হবে, কেবল ব্যভিচারী ও মুশরিক ব্যতীত।
সুতরাং এ রাতে কায়মনোবাক্যে আল্লাহর দরবারে নিজের মাগফিরাতের জন্য দু‘আ করা উচিত। (ঘ) নফল নামায আদায় করা : এ রাতের করণীয় আমলের অন্যতম হলো বেশি বেশি করে নফল নামায আদায় করা। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দীর্ঘ সিজদা সহকারে এ রাতের দীর্ঘ সময় নামাযে অতিবাহিত করেছেন। সলফে সালিহীনগণ নামাযের জন্য এ রাতকে খাস করে নিতেন। তবে শবেবরাতের নামাযের জন্য নির্ধারিত কোনো নিয়ম নেই। নিজের মনের চাহিদা অনুযায়ী যত রাকা‘আত ইচ্ছা পড়তে পারেন, যে কোনো সূরা দিয়ে পড়তে পারেন। এ বিষয়ে কোনো শর্ত নেই। দীর্ঘ নামায পড়তে চাইলে এ রাতে সালাতুত তাসবীহ এর নামায পড়া যেতে পারে।
শায়খ ইবনে তায়মিয়া শা'বানের মধ্যবর্তী রাত তথা শবেবরাতে নামায আদায় করাকে উত্তম বলেছেন। তাঁর বক্তব্য হলো-
যদি কোনো ব্যক্তি শা'বানের মধ্যবর্তী রাতে একাকী অথবা বিশেষ জামা‘আতে নামায আদায় করে, যেমন একদল সলফে সালিহীন করতেন, তাহলে এটা উত্তম। (আল ফাতাওয়া আল কুবরা, খ- ২, পৃষ্ঠা ২৬২)
(চ) কুরআন তিলাওয়াত ও শরী‘আত সম্মত অন্যান্য ইবাদত বন্দেগি করা : উপরোক্ত আমলসমূহ ছাড়াও কুরআন তিলাওয়াত, যিক্্র-আযকার, তাসবীহ-তাহলীল, দান-খয়রাতসহ শরী‘আতসম্মত অন্যান্য ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে এ রাত অতিবাহিত করা সওয়াবের কাজ। কেননা এসব আমল সব সময়েই উত্তম আমল হিসেবে বিবেচিত।
(ছ) ১৫ শা'বান দিনে রোযা রাখা : ১৫ শা'বান দিনে রোযা রাখা একটি তাৎপর্যপূর্ণ আমল। হযরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে আছে, রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন- যখন মধ্য শা'বানের রাত আসে তখন তোমরা রাত জেগে সালাত আদায় করবে আর দিনে সিয়াম পালন করবে। (ইবনে মাজাহ, খ- ১, পৃষ্ঠা- ৪৪৪)
উল্লেখ্য যে, ১৫ শা'বানের রোযা বিভিন্ন দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমত, এটি শা'বান মাসের অন্তর্ভুক্ত একটি দিন, যে মাসে রাসূল (সা.) অধিক রোযা রাখতেন। দ্বিতীয়ত, এটি আইয়ামে বীযের অন্তর্ভুক্ত। আইয়ামে বীয হলো প্রত্যেক মাসের ১৩, ১৪ ও ১৫ তম দিন। রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ তিন দিন রোযা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। তৃতীয়ত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ দিনে রোযা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। যেমন আমরা আলী (রা.) বর্ণিত হাদীসে রয়েছে।
শবেবরাতের করণীয় সম্পর্কে ইবনে রজব হাম্বলী ‘লাতায়িফুল মাআরিফ' গ্রন্থে লিখেছেন- মুমিনগণের জন্য উচিত হলো এ রাতে আল্লাহর যিকরে একান্তভাবে মনোনিবেশ করা এবং নিজের গুনাহ মাফ, দোষ-ত্রুটি গোপন করা ও বিপদাপদ দূর করার জন্য আল্লাহর নিকট দু‘আর মধ্যে নিবিষ্ট থাকা আর গুনাহের জন্য তাওবা করা। কেননা এ রাতে আল্লাহ তা‘আলা তাওবা কবুল করেন। পনের শা'বানের রোযার বিষয়ে তিনি বলেছেন, শা'বানের পনের তারিখের রোযা রাখা নিষিদ্ধ নয়। কেননা এটি আইয়্যামে বীযের অন্তর্ভুক্ত, যে দিনগুলোতে প্রত্যেক মাসে রোযা রাখা মুস্তাহাব। আর বিশেষভাবে শা'বানের এ দিনে রোযা রাখারও নির্দেশ রয়েছে। (লাতায়িফুল মা‘আরিফ, পৃষ্ঠা ১৯২)

যেহেতু শা'বান মাস ও পবিত্র রজনী শবেবরাত মহান আল্লাহর রহমত ও বরকত লাভের এক অনন্য সুযোগ সেহেতু এ সময়ে এমন কোনো কাজ করা উচিত নয় যা আল্লাহর রহমত লাভের পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।
আল্লাহ আমাদের শবেবরাতকে উত্তম আমলের মাধ্যমে অতিবাহিত করার তাওফীক দান করুন। আমীন।

  719
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

latest article

      পবিত্র রমজানের প্রস্তুতি ও ...
      সুন্নি আলেমদের দৃষ্টিতে ইমাম মাহদি ...
      ‘১০ বছরের মধ্যে ব্রিটেন হবে মুসলিম ...
      প্রাচীন ইসলামি নিদর্শন ধ্বংস করার ...
      ব্রাসেলসে ইহুদি জাদুঘরে হত্যাকাণ্ড ...
      রজব মাসের ফজিলত ও আমল
      সাড়ে ৫ হাজার ইরাকি বিজ্ঞানীকে হত্যা ...
      ইরান পরমাণু বোমা বানাতে চাইলে কেউই ...
      অশ্রু সংবরণ করতে পারেননি আফজাল গুরুর ...
      ধর্ম নিয়ে তসলিমার আবারো কটাক্ষ

 
user comment