বাঙ্গালী
Friday 26th of April 2019
  816
  0
  0

মুসলিম সমাজে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত ১২ তম পর্ব

১২ তম পর্ব

একটি সুশৃঙ্খল পরিবার গঠনে স্বামী-স্ত্রীর পারস্পরিক ঔদার্য, সহনশীলতা, ধৈর্য ও ছাড় দেয়ার প্রবণতা যে কতো গুরুত্বপূর্ণ তা নিশ্চয়ই আমাদের আলোচনা থেকে স্পষ্ট হয়েছে। পারিবারিক জীবনের প্রতিটি পর্যায়েই মনে রাখতে হবে যে, শৃঙ্খলা বিধানই হলো মূল লক্ষ্য, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি নয়। বুদ্ধিমত্তার সাথে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করাই হবে দূরদর্শিতার পরিচায়ক। তাৎক্ষণিকতার আশ্রয় নিয়ে বোকামী করা মোটেই ঠিক নয়।
ফুলের বুকে যদি মৌমাছি বসে, তাহলে সেই ফুল হয়ে ওঠে মধুময়। একই ফুলে যদি বোলতা বা ভীমরুল বসে, তাহলে কি সেই ফুল বিষময় হয়ে উঠবে? না, ফুল তার নিজস্ব বৈশিষ্ট্যেই অটুট থাকে। পার্থক্য শুধু এই যে, যে-যার প্রয়োজনীয় ও কাঙ্খিত জিনিস চেছে নেয়। ফলে, ফুলের কোন দোষ নেই। দোষ হলো গ্রহীতার। উদাহরণ এ জন্য দেয়া হলো যে, যে কোন পরিবেশেই আপন প্রত্যাশার বাস্তবায়ন সম্ভব। যদি সেই প্রত্যাশা হয় আন্তরিক। ধরা যাক আপনার স্বামী গ্রামাঞ্চলে স্থানান্তরিত হয়েছে। স্ত্রী হিসেবে আপনিও সেই গ্রামে বসবাস করতে গেলেন। সেখানে গিয়েই দেখলেন যে, শহরের নাগরিক সুবিধা থেকে এই গ্রাম বঞ্চিত। এ অবস্থায় আপনি যদি তোলপাড় কান্ড শুরু করে দেন, তাহলে কিন্তু আর শান্তির সোনার হরিণ ধরা গেল না। পক্ষান্তরে এই পরিবেশকেই যদি আপনি ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখেন, তাহলে কিন্তু শান্তির একটা সোনালী নীড় এখানে আপনি গড়ে নিতে পারেন। আপনি ভাবতে পারেন শহুরে অনেক সুবিধা এখানে হয়তো নেই, তবে প্রাকৃতিক যেই অকৃত্রিমতা এখানে রয়েছে, তা তো শহরে কল্পণাতীত। এখানে আপনি যেই তরতাজা তরী-তরকারী খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন, পাচ্ছেন মানুষের আন্তরিক ভালোবাসা, তাতো শহরে নেই। এভাবে ইতিবাচকভাবে ভাবতে পারলে এখানেও সম্ভব শান্তি-সুখের একটি পরিবেশ গড়ে তোলা। মোটকথা ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী জীবনকে নির্ঝঞ্ঝাট এক সহজতা দান করে। কবি নজরুল যেমন লিখেছেন, ‘জাহান্নামের আগুনে বসিয়া হাসি, পুষ্পের হাসি।' ঠিক তেমনি ইতিবাচক মানসিকতা গড়ে তুলতে পারলে যে কোন বৈরী পরিবেশ-পরিস্থিতিতেও সানন্দে থাকা যায়। এটি একটি অসাধারণ গুন।
ক্রমোন্নতির পথে এগিয়ে চলা যে কোন মানুষেরই একটা স্বাভাবিক প্রবণতা। আর এই উন্নতি সাধনের জন্যে প্রয়োজন সুদৃঢ় ইচ্ছা ও কঠোর শ্রম প্রদানের সামর্থ। এ দু'য়ের সমন্বয় ও বাস্তবায়নের জন্যে প্রয়োজন হয় একটা নেপথ্য অনুপ্রেরণা। যে কোন স্ত্রী তার স্বামীর এই উন্নতির পথকে করে দিতে পারে সুগম। স্ত্রী কেবল এ ক্ষেত্রে সাহায্য কারিণীই নয় বরং একজন যথার্থ গাইড হিসেবে স্বামী পুরুষটিকে নিয়ে যেতে পারেন সাফল্যের শিখরে । পৃথিবীব্যাপী উন্নতি ও কল্যাণের যতো উদাহরণ রয়েছে, সেসবের পেছনে রয়েছে এক-একটি নারীর আন্তরিক প্রেরণা। কবি নজরুল সম্ভবত এজন্যেই বলেছিলেন,

পৃথিবীর যা কিছু সুন্দর চিরকল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর ।

তাই আপনার স্বামীর উন্নতির কোন সম্ভাবনা যদি দেখতে পান, তাহলে তাঁকে উৎসাহিত করুন । এই উন্নতি যেকোন ক্ষেত্রেই হতে পারে । কী ব্যবসা-বাণিজ্য, কী পড়ালেখা, কী গবেষণা, সর্বক্ষেত্রেই আপনি হতে পারেন সাফল্যের অন্যতম সহায়ক । তবে লক্ষ্য রাখতে হবে উৎসাহিত করতে গিয়ে স্বামীরা অর্থাৎ পুরুষরা সাধারণত নিয়ন্ত্রণ বা অধীনতা পছন্দ করে না । আর সৃজনশীলতা সবসময়ই স্বাধীনতার সুযোগে বিপথে চলে না যান । বিপথগামিতা থেকে ভালোবাসা দিয়ে আন্তরিকতা দিয়ে স্বামীকে ফিরিয়ে রাখতে হবে সুকৌশলে, বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে । রাসূল (সা:) বলেছেন, স্বামীর যথার্থ যত্ন নেয়াই প্রতিটি নারীর জন্যে জিহাদ স্বরূপ ।
স্বামীর প্রতি লক্ষ্য রাখতে গিয়ে সন্দেহ পরায়ন হয়ে যাওয়াটা ঠিক নয় । মনে রাখবেন সন্দেহ অত্যন্ত ক্ষতিকর একটা রোগ, যা চিকিৎসার অযোগ্য। সন্দেহপরায়ণতা থেকে মারাত্মক পরিণতি দেখা দেয় । স্বামী বা স্ত্রী যেই এই রোগে ভোগে তার প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়া উচিত । কোনরকম বাদানুবাদ না করে যুক্তিপূর্ণ আচরণের মাধ্যমে বিশ্বাস স্থাপন তথা সন্দেহ দূর করার চেষ্টা করতে হবে । এক্ষেত্রে পুরুষ বা স্বামীর ব্যক্তিটিকে সহনশীল ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে হবে । মনে রাখতে হবে স্ত্রী যদি স্বামীকে সন্দেহ করে ঈর্ষান্বিত হয়ে পড়ে তাহলে তা ভালোবাসারই লক্ষণ । তাই তার ভালবাসাকে শ্রদ্ধার চোখে দেখা উচিত । যেকারণে কোন স্ত্রী তার স্বামীকে সন্দেহ করতে শুরু করে, বিচক্ষণতার সাহায্যে সেই কারণটি প্রথমে খুঁজে বের করা দরকার । তারপর ঐ সন্দেহ দূর করার জন্যে যে আচরণ করা সঙ্গত সততার সাথে তা করা উচিত । এ ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রে আপনার সারাদিনের কাজকর্ম নিয়ে স্ত্রীর সাথে গল্প করুন । এমন আন্তরিকতার সাথে স্ত্রীর সাথে আচরণ করতে হবে যাতে স্ত্রী স্বামীর যেকোন বিষয়ে প্রশ্ন করতে পারে নির্দ্বিধায় । নারীদের প্রতি এভাবে বিনয়ী ও সহনশীল আচরণ করলে তারাও তাদের কাজেকর্মে সততার পরিচয় দেবে । আপনারা যারা ইতিমধ্যে ঘর-সংসার শুরু করেছেন, তারা একটি বিষয় লক্ষ্য রাখবেন, তা হলো যেকোন ব্যাপারে অভিযোগ করার আগে সুনিশ্চিত প্রমাণ থাকা চাই । যতোক্ষণ না নিশ্চিত প্রমাণ পাচ্ছেন ততোক্ষন পর্যন্ত কাউকে দন্ড দেয়ার অধিকার কারো নেই । প্রমাণ ছাড়া অভিযোগ করলে, সন্দেহ করলে,যাকে অভিযুক্ত করা হলো তার কেমন লাগবে, সে বিষয়টি নিজেকে দিয়ে একবার পরীক্ষা করুন । বিনা কারণে আপনাকে কেউ দোষী বললে আপনি কি কষ্ট পাবেন না ! এই কষ্টটি অন্যে দিলে পরিনতি কেমন হবে, তা নিজেই একবার ভেবে দেখুন । আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেছেন, ‘হে ঈমানদারগণ ! অধিকাংশ সন্দেহ পরিহার কর । কারণ নিশ্চিতরূপে কোন কোন ক্ষেত্রে সন্দেহ হলো পাপ ।' ইমাম সাদিক (আ:) বলেছেন, কোন নিরপরাধ ব্যক্তিকে মিথ্যা দোষারোপ করার পরিমাপ সুউচ্চ পর্বতের চাইতে ভারী । তাই স্বামীকে সন্দেহ করার আগে ধীরে সুস্থে একবার ভাবুন ! তারপরও যদি সন্দেহ থাকে তাহলে ব্যাপারটা নিয়ে স্বামীর সাথে এমনভাবে আলাপ করার চেষ্টা করুন , যেন সত্য-মিথ্যা টের পাওয়া যায় । খোলামেলাভাবে আন্তরিকতার সাথে তাঁকে বলুন যেন সন্দেহের ব্যাপারটা তিনি পরিস্কার করে ব্যাখ্যা করে মন থেকে অশান্তি দূর করে দেন । #


source : http://bangla.irib.ir
  816
  0
  0
امتیاز شما به این مطلب ؟

آخر المقالات

      السنّة والبدعة
      لماذا تُنسَب الشيعة لابن سبأ ؟
      هل الدعوة لإزالة ذهب القباب عُمَرِيَةُ المنشأ فعلاً ؟
      القدرة المطلقة وإحياء الموتى
      ما هو الفرق بين بيعة الناس لعلي و بيعة الناس للخلفاء ؟
      ضرورة وحدة الأمة الإسلامیة
      علاقة الشیعة الامامیة بالغلاة
      لماذا ولد علي عليه السلام في الكعبة ؟!
      ما حكم الأكل من العقيقة لمن يعق عن نفسه؟
      ما حكم التوضؤ للصلاة قبل دخول الوقت؟ و هل تصح الصلاة ...

 
user comment